Home / অপরাধ / বিয়ের আসরে কনের বাবাকে কুপিয়ে হত্যা

বিয়ের আসরে কনের বাবাকে কুপিয়ে হত্যা

মোঃ আতিকুজ্জামান লাবু,কিশোরগঞ্জ, নীলফামারী।
নীলফামারীতে বিয়ের আসরে কনের বাবাকে ছুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে। ওই ঘটনায় আটক সজীব আহমেদ রকিকে (২৩) মামলার আসামি করা হয়েছে।
সোমবার গভীর রাতে জলঢাকা থানায় মামলাটি করেন নিহত শিমুল মিয়ার (৪৭) ছেলে।
মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জলঢাকা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)। তিনি জানান, অভিযুক্ত ঘাতক সজীবকে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। তার সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করা হবে।
প্রসঙ্গত, সোমবার দুপুরে কমিউনিটি সেন্টারে বিয়ের আসরে সজীবের ছুরিকাঘাতে খুন হন কনের বাবা শিমুল মিয়া। এতে গুরুতর আহত কনের মা ফিরোজা বেগমকে নীলফামারী  মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ঘটনাটি ঘটে বেলা দেড়টার দিকে। বিয়ের মূল অনুষ্ঠান তখনও শুরু হয়নি। বর এসে পৌঁছেছে। একে একে মেহমান ও আত্মীয়স্বজনরা পৌঁছতে থাকেন অনুষ্ঠানস্থলে।
দুপুর হয়ে যাওয়ায় বরের বাড়ির লোকসহ আত্মীয়দের নিয়ে মধ্যাহ্নভোজের প্রথম ব্যাচ বসানো হয়। প্রিয়াঙ্কা শুটিং হাউসের দ্বিতীয়তলায় একদিকে বর এবং অপরদিকে বিয়ের সাজে বসেছিলেন কনে।
হঠাৎ এক যুবক এসে কনেকে টেনে-হিঁচড়ে আসর থেকে বের করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। মেয়েকে রক্ষায় এগিয়ে আসেন বাবা-মা। এতে চরম ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে ওই যুবক। সঙ্গে থাকা ছুরি দিয়ে কনের বাবা-মাকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করতে থাকে।
এতে বাবা লুটিয়ে পড়েন। রক্তক্ষরণ হতে থাকে। কনের মাকেও ছুরি দিয়ে আঘাত করে যুবকটি। গুরুতর আহত অবস্থায় কনের বাবা-মাকে একটি স্থানীয় হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে নেয়ার পর চিকিৎসক জানান, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে বাবার মৃত্যু হয়।
বিয়ের খবর শুনে বুধবার কনের বাড়িতে এসে বাবা তুলা মিয়াকে হুমকি দেয়। এ সময় সজীব বলে, অন্য কোথাও মেয়ের বিয়ে দিলে ভালো হবে না। ওর বিয়ে যদি হয় আমার সঙ্গেই হতে হবে। আর তা না হলে আমি সব তছনছ করে দেব।
প্রাথমিক অনুসন্ধানের ভিত্তিতে পুলিশ বলছে, বখাটে সজীবের সঙ্গে কনে স্থানীয় একটি স্কুলে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেছে। তখন থেকেই সজীব তাকে উত্ত্যক্ত করত। সজীবের উত্যক্তের কারণেই ২০১৯ সালে তার লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যায়।
উৎপাত থেকে রক্ষা পেতে মেয়েকে তারাগঞ্জে তার খালার বাসায় পাঠিয়ে দেন বাবা শিমুল মিয়া। সেখানেও বখাটে সজীব তাকে উত্ত্যক্ত করতো।
তবে বখাটে সজীব পুলিশের কাছে দাবি করেছে, মেয়েটির সঙ্গে তার দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু মেয়ের পরিবার তা মেনে নিচ্ছিল না। প্রেমিকার বিয়ের খবর শুনে সজীব নিজেকে ঠিক রাখতে পারেনি।
এ কারণে সে বিয়ের আসরে হাজির হয়ে কনেকে নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। এতে বাধা দেয়ায় সে মেয়ের বাবা-মাকে কুপিয়ে জখম করে। সজীবের সঙ্গে কনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল- এ দাবির সত্যতা প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।

About BD LIVE TV LTD

Check Also

আজিজ হত্যা মামলার রায় আজ

২২ বছর আগে রাজধানীর লালবাগের কাচ ব্যবসায়ী আব্দুল আজিজ চাকলাদার ওরফে ঢাকাইয়া আজিজ হত্যা মামলার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *